বাংলা ক্যানভাস রান্নাঘরে জমিদারি কাঁকরোল

একটি প্রাচীন পূর্ববঙ্গীয় স্বাদের অভিজাত ঠিকানা এই পুরভরা কাঁকরোল ।ছুটি নেই,বলা ভালো ছুটি নিতে নেই।এই যে শনিবার রাতে জম্পেশ করে ঘুমোতে যাওয়া আদতে তো তা রবিবারের প্রস্তুতি। ঠিক সেইরকমই গতকাল রাতে শুয়ে শুয়ে ভাবছি আগামীকাল কী এমন করা যায়।সেসময়ই মনে পড়ল ফ্রিজে রাখা আছে কাঁকরোল।

কাঁকরোল যাকে স্বর্গীয় ফল আখ্যা দিতে বাধ্য হয়েছেন বিজ্ঞানীরা।ক্যান্সার এবং অ্যানিমিয়া প্রতিরোধ থেকে শুরু করে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ এমনকি আপনার তারুণ্য ধরে রাখতে ভীষণভাবে সাহায্য করে এই ফল।প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি, এ, বিটা ক্যারোটিন, ফাইবার এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এই সবজীকে খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করুন জলদি জলদি।

আজ যে রান্নাটা করব সেটা সকলের জানা।তবু যারা নতুন গৃহিণী বা যারা আচমকা কিছু রান্না করে রবিবারের দুপুর জমজমাট করতে চান তাদের জন্য রইল রেসিপি আর প্রতিটি পর্যায়ের ছবি।


একটু বড় সাইজের চারটি কাঁকরোল নিন। মাঝখান বরাবর দু'ভাগ করে একটা চামচ দিয়ে ভেতরের বীজগুলো বের করে রাখুন। ফেলবেন না কিন্তু, এটা কাজে লাগাব। আমরা মধ্যবিত্ত বাঙালী। খোসা থেকে বীজ কিছুই ফেলা আমাদের রাশিতে লেখা নেই।যাই হোক যে কথা বলছিলাম,কাঁকরোলের যে গর্ত দেখতে বাটি তৈরি হল সেগুলোকে সামান্য নুন হলুদ দিয়ে মিনিট তিনেক গরম জলে সেদ্ধ করে জল ঝড়িয়ে রেখে দিন আলাদা করে।এবার পুর তৈরির পালা। খুব সোজা। আগে থেকে কুড়িয়ে রাখা বীজ সামান্য কালো সর্ষে একটু পোস্ত নিয়ে একসাথে বাটুন।মিক্সিতে মিনিট দুয়েক সময় লাগে, আমি শিলনোড়া প্রেমী। অগত্যা...


কড়াইতে পাঁচ সাত কোয়া রসুনকুচি দিন।হালকা বাদামি হয়ে গন্ধ বেরিয়ে এলে দিন মাঝারি সাইজের একটা পেঁয়াজ কুচি।একটু কাঁচকাঁচ হয়ে রঙ বদলাতে শুরু করলে দিয়ে দিন ওই পেস্টটা।এরপর গ্যাসের আঁচ মাঝারি রেখে সময় নিয়ে কষিয়ে নিন। জল মরে গিয়ে শুকনো হয়ে এলে একটু আমচুর পাউডার দিন নতুবা দুটি হাজমোলা ট্যাবলেট। পুর তৈরি।


আরেকটি পদ্ধতিতে পুর তৈরি করে নেওয়া যায়।সেটি সম্পূর্ণ নিরামিষ হয়। সেক্ষেত্রে প্রথমেই হাফ লিটার দুধের ছানা তৈরি করে নিতে হবে, এরপর ছানাটা একটা মসলিন কাপড় বা পরিস্কার সাদা কাপড়ের মধ্যে রেখে উঁচু কোনো স্থানে ঝুলিয়ে রাখতে হবে অন্তত আধ ঘন্টা। জল ঝরে যাবার পর একটা কড়াইয়ে সামান্য ঘি ছড়িয়ে ছানাটা দিয়ে নাড়তে হবে এবং খুন্তির পিঠ দিয়ে ছানাটাকে ক্রমাগত ঠেসতে হবে, স্মুদ হয়ে এলে ওতে সামান্য কর্ণফ্লাওয়ার এবং পরিমাণ মতো কাজুবাদামে কিসমিস এবং সামান্য চিনি দিয়ে বেশ কিছুটা সময় ধরে রান্না করতে হবে। ছানা পাক দিয়ে পুর তৈরি হয়ে এলে অল্প পরিমাণ এলাচগুঁড়ো দিয়ে ঢাকা দিয়ে রাখতে হবে মিনিট পাঁচেক। এরপর ঢাকনা খুলে পছন্দসই শেপ-এ গড়ে নিতে হবে।

এবার যাব ফাইনাল স্টেপে।একটা বড় পাত্রে দেড়শ গ্রাম ব্যাসন দু'চার চামচ অ্যারারুট পরিমাণ মতো লবণ দু'চার দানা চিনি এক পিঞ্চ বেকিং সোডা আর সামান্য জোয়ান ( হাতের তালুতে ক্রাশ করে) মিশিয়ে জল দিয়ে দিয়ে মাঝারি ঘনত্বের ব্যাটার তৈরি করে নিন। জল ঝরানো কাঁকরোলগুলোয় পুর ভরুন। হাত দিয়ে চেপে চেপে ভরবেন যাতে কোন ফাঁক না থাকে। এরপর খুব সাবধানে ব্যাটারে ডুবিয়ে মাঝারি আঁচে রিফাইন্ড অয়েলে ডিপ ফ্রাই করে নিলেই তৈরি পুরভরা কাঁকরোল।









705 views0 comments

Recent Posts

See All

রবিবারের সন্ধে। পরিবারের সকলের মুখে হাসি। গল্পগাছা আর আড্ডাবাজি। সাথে যদি থাকে মুচমুচে সুস্বাদু স্বাস্থ্যকর এই স্ন্যাকস তাহলে জমজমাট হয়ে যায় প্রতিটি মুহূর্ত। ঘরে অনেকদিন মিইয়ে পড়ে থাকা বালিতে ভাজা কিছ